চট্রগ্রামে করোনা উপসর্গে একদিনে প্রবাসি ও তার ভাইয়ের করুণ মৃত্যু

206

চট্রগ্রামের হাটহাজারীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে ৮ ঘণ্টার ব্যবধানে দুই ভাইয়ের মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে। নিহতরা হলেন- পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের পূর্ব দেওয়ান নগর জোহরা বাপের বাড়ির মরহুম গোলাম রসুলের ছেলে মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী মো. শাহ আলম (৩৬) এবং তার ছোট ভাই ব্যবসায়ী মো. শাহ জাহান (৩২)।

জানা যায়, গতকাল শুক্রবার বেলা ২ টার দিকে চট্রগ্রাম মেডিকেল  হাসপাতালে শাহ আলম মারা যান। একই হাসপাতালে রাত ১০ টার দিকে মারা যান শাহজাহান।সূত্রে জানা যায়, হাটহাজারী পৌর এলাকার দেওয়াননগর জোহরা বাপের বাড়ির প্রবাসী শাহ আলম ও তার ভাই শাহজান জ্বর ও শ্বাস কষ্ট নিয়ে মঙ্গলবার (২ জুন) চমেকে হাসপাতালে ভর্তি হন। ভর্তির পর পরই দ্রুত চিকিৎসার্থে ৪৮ হাজার টাকায় দুটি ছোট অক্সিজেন কেনেন স্বজনরা। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় শুক্রবার সকালে কেনা ছোট অক্সিজেন দুটো ফেরৎ দিয়ে আরো ২২ হাজার টাকায় একটি বড় অক্সিজেন কেনেন।

সূত্রে জানা গেছে, দুই ভাই করোনা উপসর্গ নিয়ে প্রায় চার দিন পূর্বে চমেক হাসপাতালে ভর্তি হয়। এর মধ্যে শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে ডাক্তার তাদের আইসিইউতে রাখার পরামর্শ দেয়। কিন্তু হাসপাতালে অনেক ধরনা দিয়েও আইসিইউ বেড না পাওয়াতে গতকাল শুক্রবার বেলা ২টার দিকে শাহ আলম মারা যায়। একইভাবে আইসিইউর অভাবেই শ্বাসকষ্ট নিয়ে রাত ১০টার দিকে মারা যায় ব্যবসায়ী শাহজাহান।

মধ্যপ্রাচ্যের দুবাইয়ের আবীরস্থ সবজি মার্কেটে কাজ করতেন মো. শাহ আলম (৩৬) । গেল জানুয়ারি মাসের শেষের দিকে প্রবাস থেকে ছুটিতে দেশের বাড়িতে বেড়াতে আসেন। করোনার সংকটের কারণে আটকা পড়েন দেশে। গত ৭/৮ বছর আগে বিয়ে করেন নিহত শাহ আলম। সংসারে ৬ বছর বয়সী সানজিত নামের একটি সন্তান রয়েছে তার। শাহ আলমের ছোট ভাই নিহত শাহজাহান (৩২) হাটহাজারী বাজারের কাচারী সড়কের এন জহুর শপিং সেন্টার মার্কেটের কাপড়ের দোকান আপন ফ্যাশনের মালিক। বিবাহিত শাহজাহান সওদাগরের স্ত্রী ও ৫ বছর বয়সি এক কন্যা ও ১ বছর বয়সি এক পুত্র সন্তান রয়েছে।

নিহতের মামা ওয়াহেদুল আলম সাংবাদিকদেরকে বলেন, এক ভাগিনাকে পাঠিয়েছি দাফন করতে আরেকজন ভর্তি আছে চমেকে। চমেক চিকিৎসকদের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ডাক্তারদের না ডাকলে তারা রোগীকে দেখতেও আসেন না। তিনি বলেন, বেসরকারী হাসপাতালে অনেক চেষ্টা করেও দুজনকে ভর্তি করাতে পারিনি।করোনা উপসর্গে নিয়ে মারা গেলেও এখনো রিপোর্ট পায়নি জানিয়ে তিনি বলেন, ৩০ মে চমেকে নমুনা

করোনা থেকে রেহাই পেতে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার পরামর্শ প্রদান করেন।এদিকে মাত্র ৮ ঘণ্টার ব্যবধানে একই পরিবারের দুই ভাইয়ের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া পড়েছে। তাদের পরিবারে চলছে শোকের মাতম। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও এ নিয়ে অনেকে শোক প্রকাশ করেছেন।

এ হাসপাতাল ওই হাসপাতাল ধরনা দিতে দিতেই দুই ভাই চোখের সামনেই মারা যায় ।এদিকে মাত্র ৮ ঘণ্টার ব্যবধানে একই পরিবারের তরতাজা দুটি প্রাণ ঝড়ে যাওয়াতে এলাকায় শোকের ছায়া পড়েছে। তাদের পরিবারে চলছে শোকের মাতম। পরিবারের সদস্যদের সান্তনা দেওয়ার ভাষা নেই নিকটাত্মীয়দের। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও শোকের ঝড় উঠেছে। অনেকেই তরুণ দুই ভাইয়ের ছবি দিয়ে ফেসবুকে শোক প্রকাশ করেছে।

(Visited 11 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here